The Business Post
শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১

প্রচ্ছদ খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ২০:৪৩:৩২

বাংলাদেশকে হারিয়ে সমতায় ফিরলো জিম্বাবুয়ে

বাংলাদেশকে হারিয়ে সমতায় ফিরলো জিম্বাবুয়ে

সিরিজ জয়ের জন্য লক্ষ্যটা বেশ বড়ই ছিল। কিন্তু ১৬৭ রানের এই লক্ষ্যকে আরও কঠিন করে তোলেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। সৌম্য-সাকিব-মাহমুদউল্লাহদের ব্যাটিং ব্যর্থতায় তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টির ফলটা নিজেদের করে নিয়েছে জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশকে ২৩ রানে হারিয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-১ সমতা এনেছে স্বাগতিকরা।

শুক্রবার হারারে স্পোর্টস ক্লাবে টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে ওয়েলসি মাধেভেরা ও রায়ার্ন বার্লের ব্যাটে ১৬৬ রানের সংগ্রহ পায় জিম্বাবুয়ে।

১৬৭ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে জিম্বাবুয়ের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং আর বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় এক বল বাকি থাকতেই ১৪৩ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশের ইনিংস।

এদিন স্কোরকার্ডে মাত্র ৫৩ রান তুললেই ৫ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ব্লেসিং মুজারাবানি ও ওয়েলিংটন মাসাকাদজার শিকার হয়ে একে একে সাজঘরে ফেরেন নাঈম শেখ, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মেহেদী হাসান।

টপ অর্ডারের পাঁচ ব্যাটসম্যানের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৫ রান করেন মেহেদী হাসান। সাকিবের ব্যাট থেকে আসে ১২ রান। বাকি তিনজনের কেউই দুই অঙ্কের রান স্পর্শ করতে পারেননি। এদের মধ্যে নাঈম ৫, সৌম্য ৮ ও মাহমুদউল্লাহর ব্যাট থেকে আসে ৪ রান।

টপ অর্ডারের ব্যর্থতা আর কাটিয়ে উঠতে পারেননি দলের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা। মধ্যে শামীম হোসেন পাটোয়ারিকে নিয়ে ঘুরে দাড়ানোর কিছুটা অভাস দিয়েছিলেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। কিন্তু পরাজয়ের ব্যবধান কমানো ছাড়া কার্যত কাজে আসেনি সপ্তম উইকেটে শামীম-আফিফের গড়া ৪১ রানের জুটি।

সর্বোচ্চ ২৯ রান আসে এই ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অভিষেক হওয়া শামীমের ব্যাট থেকে। এছাড়া আফিফ হোসেন ২৪ ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন করেন ১৯ রান।

জিম্বাবুয়ের হয়ে তিনটি করে উইকেট নেন ওয়েলিংটন মাসাকাদজা ও লুক জংয়ে। এছাড়া টেন্ডাই চাতারা ও ব্লেসিং মুজারাবানি নেন দুটি করে উইকেট।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিং করতে এসে শুরুটা ভালো হয়নি জিম্বাবুয়ের। মাত্র ১৫ রানে ওপেনার তাদিওয়ানাশে মারুমানিকে সাজঘরে ফেরান শেখ মেহেদী হাসান।

উইকেট হারিয়ে রেগিস চাকাবাকে সাথে নিয়ে আগ্রাসী ব্যাটিং শুরু করেন আরেক ওপেনার ওয়েসলি মাধেভেরে। তবে বেশিক্ষণ ক্রিজে থাকতে পারেননি চাকাবা। ২১ বলে ২৭ রানে জুটি গড়ে ব্যক্তিগত ১৪ রানে সাকিবে শিকারে পরিণত হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

পাওয়ার প্লেতে দুই উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপাকে পড়লেও ওপেনার মাধেভেরে ও ডিয়ন মায়ার্সের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ায় জিম্বাবুয়ে। ভয়ংকর হয়ে ওঠা মাধেভেরেকে ফিরিয়ে তাদের ৫৭ রানের জুটি ভাঙেন শরিফুল ইসলাম। কিন্তু তার আগে ৫৭ বলে ৫ চার ও ৩ ছয়ে ৭৩ রানের ইনিংস খেলেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান।

এরপর ডিয়ন মায়ার্সের ২৬ ও রায়ার্ন বার্লের ১৯ বলে অপরাজিত ৩৪ রানে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৬৬ রানের সংগ্রহ পেয়ে যায় জিম্বাবুয়ে।

বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ তিন উইকেট নেন পেসার শরিফুল ইসলাম। এছাড়া একটি করে উইকেট নেন মেহেদী হাসান ও সাকিব আল হাসান।