The Business Post
মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১৮, ২০২২

প্রচ্ছদ জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৭ জানুয়ারি ২০২২ ২১:৩৬:৫৮

কামরাঙ্গীরচরে হবে কেন্দ্রীয় বাণিজ্যিক অঞ্চল: তাপস

কামরাঙ্গীরচরে হবে কেন্দ্রীয় বাণিজ্যিক অঞ্চল: তাপস

রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে একটি কেন্দ্রীয় বাণিজ্যিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস।

বুধবার দুপুরে নগরীর কামরাঙ্গীরচর বেড়িবাঁধ সংলগ্ন লোহারপুল এলাকায় আদি বুড়িগঙ্গা নদীপথের (চ্যানেল) উপর সেতু নির্মাণের সম্ভাব্য স্থান পরিদর্শন শেষে এ কথা বলেন তিনি।

শেখ তাপস বলেন, কামরাঙ্গীরচরে কেন্দ্রীয় বাণিজ্যিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করতে যাতায়াত সুবিধা নিশ্চিতের ভবিষ্যৎ কার্যক্রম মাথায় নিয়ে দুটো সেতু আমাদেরকে করতে হবে। যাতে করে মূল ঢাকার সঙ্গে সেটার সংযোগ নিশ্চিত হয়। সেই লক্ষ্যে আমরা কোথায় কোথায় সেতু করবো, সেই বিষয়গুলো সরেজমিনে দেখার জন্য আজকে আমাদের বিশেষজ্ঞ, পরিকল্পনাবিদ ও আমাদের প্রধান প্রকৌশলীসহ পরিদর্শনে এসেছি। তার সঙ্গে আনুষঙ্গিক সড়ক ব্যবস্থা কী করতে হবে, সে বিষয়গুলোও আমরা সরেজমিন পরিদর্শন করলাম। আমরা আশা করছি, আগামী ফেব্রুয়ারি থেকেই আদি বুড়িগঙ্গা পুনঃখনন কাজ শুরু করতে পারবো। সেই লক্ষ্যে আমরা এরই মাঝে আমাদের কার্যক্রম হতে নিয়েছি।

তিনি বলেন, আদি বুড়িগঙ্গা নদীর অংশবিশেষ দখলমুক্ত করা হয়েছে। আমরা আশা করছি, আগামী সপ্তাহ থেকেই ঢাকা জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন যৌথভাবে অভিযান পরিচালনা করবে এবং আদি বুড়িগঙ্গার যে অংশ এখনো দখল অবস্থায় আছে সেগুলো দখলমুক্ত কার্যক্রম হাতে নেবো।

মহাপরিকল্পনার আওতায় কার্যক্রমগুলো নেয়া হচ্ছে জানিয়ে মেয়র বলেন, প্রত্যেকটা বিষয়ে আমরা নজর দিচ্ছি। কামরাঙ্গীরচরে এই যে নদী খনন, সেতু নির্মাণ-তার সঙ্গে আমরা বেড়িবাঁধের সড়কটাকেও ছয় সারিতে রূপান্তরিত করবো। দুই সারি দুই সারি করে চার সারি থাকবে এক্সপ্রেসওয়ে। আর মূল সড়কের সঙ্গে সংযোগ সৃষ্টির জন্য এক সারি এক সারি থাকবে সার্ভিস রোড। সুতরাং আমরা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ব্যবস্থা সৃষ্টির কাজ হাতে নিয়েছি। এটা অনেক বড় কর্মযজ্ঞ। ধীরে ধীরে এটা দৃশ্যমান হবে। অংশ অংশ করে আমরা আগাবো। আমরা শুধু পরিকল্পনা করছি না, সেই সঙ্গে অ্যাকশন প্ল্যান নিচ্ছি এবং কাজেও হাত দিচ্ছি। এতে করে এক দিকে আমাদের পরিকল্পনা শেষ হবে, আরেক দিকে আমাদের কাজগুলো চলবে। পর্যায়ক্রমে আমাদের কাজগুলো দৃশ্যমান হবে।

এসময় প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমডোর সিতওয়াত নাঈম, প্রধান প্রকৌশলী সালেহ আহমদ, সচিব আকরামুজ্জামান, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক, ভারপ্রাপ্ত প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফজলে শামসুল কবির প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।